New to Nutbox?

বিবর্তন ও একটি ভবিষ্যৎবাণী -পর্ব ০৯

45 comments

rme
83
8 days agoSteemit4 min read


Copyright Free Image Source : Pixabay


প্রস্তরযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ আবিষ্কার গুলো হলো আগুন, দূরে ছুঁড়ে মারার অস্ত্র বর্শা ও তীর, কুকুর পোষা ও শিকারের কাজে ব্যবহার করা, নৌকো, কৃষিকাজ এবং মৃৎ শিল্প । আর একটি খুব বড় আবিষ্কার হলো চিত্রকলা । হ্যাঁ, মানুষের চিরন্তন শিল্পকলার সূত্রপাত সেই আদিম যুগ থেকেই । প্রস্তর যুগেই সর্বপ্রথম মানুষের শিল্পকলার সূত্রপাত ঘটে ।

সেই যুগে ভাষা ছিল নির্বাক, সংকেতময় । মনের ভাব প্রকাশের এক মাত্র মাধ্যম ছিল হাতের আঙুলের মাধ্যমে নানান রকমের সংকেত সৃষ্টি করে । সেই, যুগেই মানুষ কিন্তু চিত্রকলার দিকে ঝোঁকে । গুহার দেওয়ালে তারা গল্প বলতো, গল্প লিখতো, তাদের মনের ভাব ফুটিয়ে তুলতো । কী ভাবে ? চিত্রকলার মাধ্যমে ।

প্রস্তরযুগে রাতের বেলায় উদরপূর্তির পর মানুষের থাকতো বেশ খানিকটা লম্বা অখন্ড অবসর । প্রজ্জ্বলিত অগ্নিকুন্ডের সামনে বসে তারা তাদের অবকাশকালীন সময়টুকু উপভোগ করতো । আগুন আবিষ্কারের আগে মানুষ সন্ধ্যা নামার সাথে সাথেই একটা আশ্রয় খুঁজে ঘুমিয়ে পড়তো । মানুষের চোখ নিকষ কালো আঁধারে কিছুই দেখতে পায় না, অন্যান্য প্রাণীর মতো চোখ নয় তাদের । তাই আঁধার নামা মাত্রই তারা ঘুমিয়ে পড়তো ।

কিন্তু, আগুন আবিষ্কারের পরে রাতের আঁধার দূর হলো । অন্ধকারকে মানুষ আজীবন ভয় পায় । সেই ভয় দূর করতে পারলো । স্থায়ী বাসস্থান গুহা, ভরপেট খাওয়া আর আগুনের আলো ও ওম তাদের একটা ভারী নিশ্চিন্ত রাত উপহার দিতো । সকাল সকাল তাই তারা না ঘুমিয়ে নিজেদের মধ্যে আকারে ইঙ্গিতে গল্প করতো ।

শিল্পীসত্ত্বা প্রত্যেকটি মানুষের মধ্যেই রয়েছে । কেউ সেটি প্রকাশ করতে পারে না, আর কেউ সেটি খুব সুন্দর করে প্রকাশ করতে পারে । আদিম মানুষদের মধ্যেও এই শিল্পীসত্ত্বাটি ছিল । প্রত্যেকটি আদিম গোষ্ঠীতে একদল শিল্পী ছিল । তারা আগুনে পোড়ানো কয়লা কাঠ, চুনা পাথরের টুকরো, গেরুয়া খড়ি মাটি, ফুল ও লতাপাতা থেকে নিষ্কাশিত রঙ দিয়ে ছবি আঁকতো । গুহার দেয়াল জুড়ে ।

প্রায় অধিকাংশ চিত্রকর্ম হতো শিকারের ছবি ভিত্তিক বা উল্লেখযোগ্য কোনো ঘটনা ভিত্তিক । আর ছিল নানান প্রাণীদের চিত্রকর্ম । সেই আদিম যুগেও মানুষ নিজেদের ইতিহাস লিখে গিয়েছে ছবির মাধ্যমে । স্মরণীয় শিকারের দৃশ্যগুলো নিখুঁতভাবে ফুটিয়ে তুলেছে পাথরের বুকে । তাদের চিত্রকর্মগুলো ছিল একাধারে গল্প, ইতিহাস আর স্মৃতির ডায়েরি । মনের মাঝের অব্যক্ত কথাগুলি কয়লা কাঠ বা চুনাপাথরের স্পর্শে ফুটে উঠতো কঠিন পাথুরে দেওয়ালে ।

আজকে মিউজিয়াম থেকে তোলা আমার কয়েকটি ফটোগ্রাফ এখানে শেয়ার করছি । প্রস্তর যুগের এগুলি । কিছু হলো প্রস্তর যুগের অস্ত্র-শস্ত্র আর কিছু হলো আদিম গুহাচিত্র ।


বিভিন্ন বিলুপ্ত প্রাচীন মানব প্রজাতির মাথার খুলি । এখানে আছে - হোমো সাপিয়েন্স (সবার উপরের তাকে), হোমো নিয়ান্ডারথাল (তার নিচের তাকে), হোমো ইরেক্টাস (তার নিচের তাকে), হোমো হাবিলিস (সব চাইতে নিচের তাকে)

নিম্ন-প্রস্তর যুগের নানান প্রস্তর নির্মিত অস্ত্র শস্ত্র । বিভিন্ন আকার ও আকৃতির হাত কুঠার, ছুরি, স্ক্র্যাপার, হারপুন । সবই যুদ্ধ ও শিকারে ব্যবহৃত হতো ।

মধ্য-প্রস্তর যুগের নানান প্রস্তর নির্মিত অস্ত্র শস্ত্র । বিভিন্ন আকার ও আকৃতির সেল্ট, রিংস্টোন, স্ক্র্যাপার, ক্লিভার ও হাত কুঠার । সবই যুদ্ধ ও শিকারে ব্যবহৃত হতো ।

উচ্চ-প্রস্তর যুগের নানান প্রস্তর নির্মিত অস্ত্র শস্ত্র । বিভিন্ন আকার ও আকৃতির সাইড স্ক্র্যাপার, টুলস ও হাত কুঠার। সবই যুদ্ধ, গৃহ নির্মাণ ও শিকারে ব্যবহৃত হতো ।


এগুলি হলো আদিম যুগের মানুষের গুহা চিত্র । ভীমবেটকা গুহার দেয়াল চিত্র থেকে প্রাপ্ত ।

[ক্রমশ ...]


পরিশিষ্ট


প্রতিদিন ১৫০ ট্রন করে জমানো এক সপ্তাহ ধরে - ৪র্থ দিন (150 TRX daily for 7 consecutive days :: DAY 04)


trx logo.png




টার্গেট ০৩ : ১,০৫০ ট্রন স্টেক করা


সময়সীমা : ৩১ জুলাই ২০২২ থেকে ০৬ আগস্ট ২০২২ পর্যন্ত


তারিখ : ০৩ আগস্ট ২০২২


টাস্ক ১৮ : ১৫০ ট্রন ডিপোজিট করা আমার একটি পার্সোনাল TRON HD WALLET এ যার নাম Tintin_tron


আমার ট্রন ওয়ালেট : TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx

১৫০ TRX ডিপোজিট হওয়ার ট্রানসাকশান আইডি :

TX ID : 187d7ac754933eb5d9f319de9ec51b6bfcc522f0c25b52a09f1b2a77e221dff5

টাস্ক ১৮ কমপ্লিটেড সাকসেসফুলি


এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তো যে কোনো এমাউন্ট এর টিপস আনন্দের সহিত গ্রহণীয়

Account QR Code

TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx (1).png

Comments

Sort byBest