New to Nutbox?

শীতের শুরুতে পিকনিক ও বেলুড় মঠ ভ্রমণ

21 comments

rme
89
10 days agoSteemit5 min read

এবছরে শীতের শুরুতে বেশ বড় বড় দু'টো পিকনিক করলাম আমরা । তার মধ্যে একটা ছিল আবার আমাদের বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে । অন্য একটা পোস্টে সেটা নিয়ে লিখবো । আজ শুধু পিকনিক আর বেলুড় মঠ ভ্রমণ নিয়ে একটা সংক্ষিপ্ত ফোটোগ্রাফি পোস্ট করছি ।

ডিসেম্বরের ঠিক মাঝামাঝি আমাদের ফ্যামিলি আর স্বাগতার বাবার বাড়ির ফ্যামিলির সবাই এক সাথে একটা পিকনিক করলাম । পিকনিক স্পটটি আমাদের বাড়ির খুব কাছেই । গাড়িতে যেতে ১৫-২০ মিনিট লাগে মোটে । সকাল দশটায় যাওয়ার কথা ছিল আমাদের । স্বাগতা, আমার ভাই আর নিলয় সকাল সাড়ে ন'টার মধ্যে স্পটে পৌঁছে গেলো । টিনটিনের স্কুল ছিল সেদিন । তাই টিনটিন স্কুল থেকে ফিরলে আমরা তিনজন পিকনিক স্পটের উদ্দ্যেশ্যে রওনা দিলাম । বেলা ১২ টা নাগাদ আমরা সবাই পিকনিক স্পটে পৌঁছে গেলুম ।

আমরা পৌঁছানোর কিছুক্ষনের মধ্যেই স্বাগতার বাবার বাড়ির ফ্যামিলির সবাই একে একে পৌঁছে গেলো । বেশ বড় একটা বাগান বাড়ি বুক করেছিলাম আমরা । সুন্দর সাজানো গোছানো বাগান বাড়ি । প্রশস্ত লন, বাগান, প্লে গ্রাউন্ড, দোলনা, পুকুর, এন্টারটেইনমেন্ট স্টেজ, ডাইনিং গ্রাউন্ড - মোটামুটি সব কিছুই বেশ সুন্দর এবং ছিমছাম ।

খাওয়া দাওয়ারও হেভি বন্দোবস্ত ছিল । ক্যাটারার, বেয়ারা, মকটেল কাউন্টার - সবই ছিল । স্টার্টার আইটেম অনেকগুলি ছিল - চিকেন পকোড়া, ফুলকপি পকোড়া, এগ ডেভিল, চিংড়ি কাটলেট, প্রন গোল্ডেন ফ্রাই, ভেটকি ব্যাটার ফ্রাই, ফিশ ফিঙ্গার প্রভৃতি ছিল স্টার্টার আইটেম । আমরা স্টার্টার আইটেম খাওয়ার পাশাপাশি ক্রিকেট খেলতে লাগলাম । কেউ কেউ ব্যাডমিন্টন খেললো । কেউ দোলনায় দোল খেলো । আবার কেউ কেউ স্টেজে উঠে গান-বাজনায় মাতলো । এরই মাঝে চললো এনতার মকটেল খাওয়া ।

এভাবে কয়েক ঘন্টা দারুন এনজয় করার পরে খাওয়া দাওয়ার পালা চলে এলো । পোলাও, মাছের মাথা দিয়ে ডাল, চিতল মাছের মুইঠ্যা, ভেটকি পাতুরি, পাবদা মাছের ঝাল, চিকেন, খাসির মাংস, চাটনি, পাঁপড় আর আইসক্রিম । এটাই ছিল মেইন কোর্স । খাওয়া দাওয়ার পরে অনেকেই স্টেজে উঠে গান গাইলো । ছবি তোলা চললো । তারপরে সন্ধ্যায় বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম সবাই । দারুন একটা দিন কাটলো ।

পিকনিকের ঠিক দুই দিন পর আমি, তনুজা, টিনটিন আর স্বাগতা একদিন বিকেলে বেলুড় মঠে ঘুরতে গেলুম । বেলুড় মঠে যেতে আমাদের বাড়ি থেকে মাত্র এক ঘন্টার মতো লাগে । তবে এই দিন টিনটিন খুবই অশান্তি করায় ঘোরাটা তেমন ভালো হলো না । জমলোই না । বেলুড় মঠে ঢোকার পরে মাত্র মিনিট দশ-পনের একটু ঘুরেই আমরা ফিরে এলুম । টিনটিন অসম্ভব কান্নাকাটি জুড়ে দেওয়ার কারণে । পরিকল্পনা ছিল পুরো দু'টি ঘন্টা ধরে স্বামী বিবেকানন্দের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক স্থানটি ঘুরে দেখার । তবে সেই পরিকল্পনায় জল ঢেলে দিলো টিনটিন ।

মাত্র মিনিট পনের বেলুড় মঠের মধ্যে রাস্তায় ঘোরাঘুরি করে কয়েকটা ফটো তুলেই তাই সেইদিন বাধ্য হয়ে আমাদের বাড়ি ফিরে আসতে হলো ।


সুন্দর সাজানো গোছানো ছিমছাম পিকনিক স্পট ।
তারিখ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ১ টা ৩০ মিনিট
স্থান : কোলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বাগানবাড়িতে একটি পুকুর ছিল । পুকুরের চারিপাশের পাড় খুব সুন্দর করে বাঁধানো ছিল ।
তারিখ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ১ টা ৪০ মিনিট
স্থান : কোলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বাগানবাড়ির ভিতরে প্রচুর গাছগাছালি ছিল । খুব সুন্দর করে সাজানোও ছিল ভেতরটা ।
তারিখ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ১ টা ৫০ মিনিট
স্থান : কোলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


সুন্দর একটি বেশ বড় খেলার মাঠও ছিল ।
তারিখ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ২ টা ০০ মিনিট
স্থান : কোলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বাংলোটিও খুব সুন্দর দেখতে ছিল ।
তারিখ : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ২ টা ০০ মিনিট
স্থান : কোলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বেলুড় মঠের একটা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার ।
তারিখ : ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ৩ টা ১০ মিনিট
স্থান : হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


এটি রামকৃষ্ণ সংগ্রহশালা।
তারিখ : ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ৩ টা ১৫ মিনিট
স্থান : হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বেলুড় মঠের দ্বিতীয় তোরণ ।
তারিখ : ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ৩ টা ২০ মিনিট
স্থান : হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


অত্যাধুনিক টয়লেট।
তারিখ : ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ৩ টা ২৫ মিনিট
স্থান : হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


বিখ্যাত সেই বেলুড় মঠ ।
তারিখ : ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩
সময় : দুপুর ৩ টা ২৫ মিনিট
স্থান : হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত ।


ক্যামেরা পরিচিতি : OnePlus
ক্যামেরা মডেল : EB2101
ফোকাল লেংথ : ৫ মিমিঃ


------- ধন্যবাদ -------


পরিশিষ্ট


আজকের টার্গেট : ৫৫৫ ট্রন জমানো (Today's target : To collect 555 trx)


তারিখ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

টাস্ক ৪৯৫ : ৫৫৫ ট্রন ডিপোজিট করা আমার একটি পার্সোনাল TRON HD WALLET এ যার নাম Tintin_tron


আমার ট্রন ওয়ালেট : TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx

৫৫৫ TRX ডিপোজিট হওয়ার ট্রানসাকশান আইডি :

TX ID : 8a89bd4f63ad98cbc5bb30d10f0f63b03a10389525c4d034ea38e691ce65873e

টাস্ক ৪৯৫ কমপ্লিটেড সাকসেসফুলি


এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তো যে কোনো এমাউন্ট এর টিপস আনন্দের সহিত গ্রহণীয়

Account QR Code

TTXKunVJb12nkBRwPBq2PZ9787ikEQDQTx (1).png


VOTE @bangla.witness as witness

witness_proxy_vote.png

OR

SET @rme as your proxy


witness_vote.png


steempro....gif

»»——⍟——««

Comments

Sort byBest